করোনার ভ্যাকসিন তৈরির প্রযুক্তি মানুষের আয়ত্তে, সময়ের অপেক্ষা মাত্র

মুম্বাইয়ের নরিম্যান পয়েন্ট, দাদর বা থানে—কোথাও মাস্ক পরা লোক দেখিনি। মুম্বাই এয়ারপোর্টে চোখে পড়েছিল দু-একজনের। কিন্তু হিথরোতে এসে দেখি মাস্ক পরা লোকের সংখ্যা অনেক।

আমাদের বাড়ি লন্ডনের এক শহরতলিতে। অফিসের কাজে পাঁচ দিন ভারতে ছিলাম। বাড়িতে ফিরে দেখি ১১ বছরের ছেলে ও তার মা দুজনই সন্ত্রস্ত। বক্তব্য একটাই—সুপার মার্কেটে যেতে হবে। অ্যালকোহলসমৃদ্ধ স্যানিটাইজার, প্যারাসিটামল, শুকনো খাবার কিনতে হবে। পাঁচ মিনিট পরপর ফোন আসছে আমার স্ত্রীর কাছে। বন্ধুরা আপডেট দিচ্ছে কোথায় কোনটা পাওয়া যাচ্ছে বা যাচ্ছে না। একের পর এক দেশে/রাজ্যে জরুরি অবস্থা জারি হচ্ছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে বন্ধ করা হচ্ছে স্কুল, কলেজ, সীমিত করা হচ্ছে জনযোগাযোগ। সবাই ভীত। কারণ একটাই—কোনো ভ্যাকসিন নেই।

কবে আসছে ভ্যাকসিন? কত সময় লাগবে? নতুন ওষুধ বানানো ও বাজারে আনা মানে একটা মহাযজ্ঞ। মেধা, সময় আর প্রচুর অর্থের দরকার হয়। সাফল্য থেকে ব্যর্থতাই ঢের বেশি। একটা ওষুধ বাজারে আনতে সময় লাগে প্রায় ১০ বছর; যদি কিনা আমরা ওষুধের আবিষ্কার থেকে প্রাণিদেহে, মানুষে পরীক্ষার সময়টা হিসাবে ধরি। খরচ ৮০ থেকে ১০০ কোটি ডলার। মানুষের শরীরে ১০০টি ওষুধের পরীক্ষা হলে মাত্র গড়ে ১৩টি ব্যবহারযোগ্য ওষুধ হিসেবে অনুমোদন পায়। ১০০ কোটি ডলার খরচ করার পর ওষুধ কোম্পানিগুলো মাত্র পাঁচ বছর হাতে পায় এই অর্থ তুলে মুনাফা করার।

সূত্র: প্রথম আলো

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *