চেলসিকে দুই লেগে বিধ্বস্ত করে কোয়ার্টারে বায়ার্ন

প্রথম লেগের বড় জয়ে কাজ অনেকটা সেরেই রেখেছিল বায়ার্ন মিউনিখ। ঘরের মাঠেও চেলসিকে দাঁড়াতে দিল না তারা। রবের্ত লেভানদোভস্কির দারুণ নৈপুণ্যে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার-ফাইনাল উঠেছে জার্মান ক্লাবটি।

আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায় শনিবার রাতে শেষ ষোলোর ফিরতি লেগে ৪-১ গোলে জেতে বায়ার্ন। দুটি গোল করার পাশাপাশি অন্য দুটিতে অবদান রাখেন লেভানদোভস্কি। দুই লেগ মিলে ৭-১ ব্যবধানে এগিয়ে গেল বায়ার্ন। চেলসির মাঠে ৩-০ গোলে জিতেছিল তারা।

দুর্দান্ত ফর্মে থাকা লেভানদোভস্কির নৈপুণ্যে ম্যাচের দশম মিনিটেই গোল পেয়ে যায় বায়ার্ন। ডি-বক্সে তাকে গোলরক্ষক উইলি কাবাইয়েরো ফেলে দিলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। অবশ্য অফসাইডের পতাকা তুলেছিলেন লাইন্সম্যান; তবে ভিএআরে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত বহাল থাকে। নিখুঁত স্পট কিকে গোলটি করেন পোলিশ এই স্ট্রাইকার।

২৪তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ইভান পেরিসিচ। লেভানদোভস্কির পাস ডি-বক্সে ফাঁকায় পেয়ে কোনাকুনি শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন এই ক্রোয়াট মিডফিল্ডার।

পাঁচ মিনিট পর দূরপাল্লার শটে জালে বল পাঠিয়েছিলেন চেলসির ক্যালাম হাডসন-ওডোই। তবে আক্রমণের শুরুতে ট্যামি আব্রাহাম অফসাইডে থাকায় ভিএআরের সাহায্যে গোল দেননি রেফারি।

৪৪তম মিনিটে বায়ার্ন গোলরক্ষকের ভুলে গোলের দেখা পায় চেলসি। বাঁ দিক থেকে এমেরসনের বাড়ানো ক্রসে কোনোরকম হুমকি ছিল না। কিন্তু ঝাঁপিয়ে ধরতে গিয়ে মানুয়েল নয়ার উল্টো বল তুলে দেন আব্রাহামের পায়ে। কাছ থেকে বল জালে ঠেলতে কোনো ভুল হয়নি তরুণ ইংলিশ ফরোয়ার্ডের।

৭৬তম মিনিটে স্কোরলাইন ৩-১ করে তোলিসো। লেভানদোভস্কির ক্রস ছোট ডি-বক্সে পেয়ে অনায়াসে ঠিকানায় পাঠান ফরাসি এই মিডফিল্ডার।

৮৩তম মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়ান লেভানদোভস্কি। ওদ্রিওসোলার ক্রসে দারুণ এক হেডে আসরে নিজের ত্রয়োদশ গোলটি করেন তিনি। চলতি মৌসুমে লেভানদোভস্কির মোট গোল হলো ৫৩টি।

একই সময়ে শুরু হওয়া আরেক ম্যাচে নাপোলিকে ৩-১ গোলে হারিয়ে দুই লেগ মিলে ৪-২ অগ্রগামিতায় শেষ আটে উঠেছে বার্সেলোনা। আগামী শুক্রবার সেমি-ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে মেসি-সুয়ারেসদের বিপক্ষে মাঠে নামবে বায়ার্ন।

সূত্র : বিডিনিউজ

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন ও লাইক দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *