বিদেশ যেতে কভিড-১৯ নেগেটিভ সনদ বাধ্যতামূলক নয়

6

আবার বদল হল সরকারি সিদ্ধান্ত। বিদেশ যেতে যাত্রীদের জন্য কভিড-১৯ পরীক্ষার নেগেটিভ ফলাফলের সনদ বাধ্যতামূলক ঘোষণা দেওয়ার ১৮ দিন পর তা শিথিল করেছে সরকার।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) আন্ত:মন্ত্রণালয় বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.এ কে আব্দুল মোমেন এবং বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান বলেন, এখন শুধু যে দেশ থেকে চাওয়া হবে শুধু সেই দেশে ভ্রমণের ক্ষেত্রে এই সার্টিফিকেট নিলেই হবে। সব দেশের জন্য বাধ্যতামূলক থাকছে না।

তিনি আরও বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কিংবা আইকাও ( বেসরকারি বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষগুলো আর্ন্তজাতিক সংস্থা) এর নির্দেশনাতেও কভিড-১৯ সার্টিফিকেট বাধ্যতামূলক সঙ্গে রাখার কথা নেই। দেশের ভাবমূর্তির কথা চিন্তা করে এটা বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল। তবে যাত্রীদের ভোগান্তিদর কথা বিবেচনায় আবারও শিথিল করা হয়েছে। এ ব্যপারে অনলাইনে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক হয়েছে। বৈঠকের সিদ্ধান্ত পাওয়া গেছে। এখন প্রজ্ঞাপনও জারি করা হবে।

ইতালি সরকার বাংলাদেশ থেকে যাত্রী বহন করা সব ফ্লাইট বাতিলের ঘোষণা দেওয়ার পর বিতর্কের মুখে গত ১২ জুলাই বিদেশগামী যাত্রীদের জন্য কভিড-১৯ পরীক্ষার নেগেটিভ সার্টিফিকেট ব্যবহার বাধ্যতামূলক করার ঘোষণা দেয় এবং তা গত ২৩ জুলাই থেকে কার্যকর করা হয়।

সারাদেশে মোট ১৩ জেলার সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে ১৩টি বুথে বিদেশগামীদের নমুনা পরীক্ষার বুথ স্থাপন করা হয়। ঢাকায় বুথ ছিল একটি। তবে ৪৮ ঘণ্টা আগে সেখানে নমুনা দেয়ার শর্তের কারণে সময়মত তা হাতে না পাওয়ায় অনেকেই ফ্লাইট ধরতে ব্যর্থ হন।

এর মধ্যে গত ২৬ জুলাই লন্ডন যাওয়ার সময় হযরত শাহজালাল আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দরে কভিড-১৯ সনদ পরীক্ষার ভুয়া সনদ নিয়ে লন্ডন যাওয়ার সময় সাবেক মন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন সরকার দলীয় প্রভাবশালী এক নেতার কন্যা ধরা পড়ে যায়। এ নিয়ে প্রচণ্ড সমালোচনার চার দিন পরই আন্ত:মন্ত্রণালয় বৈঠক থেকে নতুন সিদ্ধান্ত আসল।

সূএ-সমকাল।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন ও লাইক দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে