সংবাদ শিরোনাম
Home / সারাদেশ / খুলনা / হত্যার আগের দিন রিফাতের কাছে ডিভোর্স চেয়েছিলেন মিন্নি

হত্যার আগের দিন রিফাতের কাছে ডিভোর্স চেয়েছিলেন মিন্নি

বরগুনার বহুল আলোচিত চাঞ্চল্যকর শাহনেওয়াজ রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের আগের দিন ২৫ জুন দুপুরে রিফাত শরীফ ও আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি রিফাতের ফুফাত বোন হ্যাপি বেগমের বাসায় গিয়েছিলেন। সেখানে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। মিন্নি স্বাধীনভাবে চলতে চেয়েছিল। রিফাত তাকে স্বাধীনভাবে চলতে দিতে রাজি ছিলেন না। এ কারণে ওই বাসায় মিন্নি রিফাতের কাছে ডিভোর্স চেয়েছিল। রোববার (২ ফেব্রুয়ারি) বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ মো. আছাদুজ্জামানের আদালতে এমনই সাক্ষ্য দিয়েছেন হ্যাপি বেগম। সাক্ষ্যপ্রদান শেষে এ কথা জানিয়েছেন তিনি।

একই দিন আদালতে এ হত্যা মামলায় আরও দুজনের সাক্ষ্য ও জেরা সম্পন্ন হয়েছে। তারা হলেন- বরগুনা পৌর কাউন্সিলর ফারুক শিকদার ও জয় চন্দ্র রায়। সাক্ষ্য প্রদানকালে মামলার অন্যতম আসামি আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ প্রাপ্তবয়স্ক ৯ আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এ পর্যন্ত ৩৮ জনের সাক্ষ্য ও জেরা সমাপ্ত হয়েছে।

এদিকে একই আদালতে গতকাল আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদনের শুনানি করে সাক্ষীকে হুমকির অভিযোগ তদন্তের আদেশ দিয়েছেন বিচারক মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।

রোববার সকাল সাড়ে ৯টায় জেলা কারাগার হতে পুলিশ পাহারায় আট আসামিকে দায়রা আদালতে হাজির করা হয়। জামিনে থাকা আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিও তার বাবার সঙ্গে আদালতে উপস্থিত হন। আসামি মুছা এখনো পলাতক রয়েছে।

সাক্ষ্য প্রদান শেষে জয় চন্দ্র রায় বলেন, ২৫ জুন সকাল সাড়ে ৯টায় রিফাত ফরাজি ও মিন্নি বরগুনা সরক কলেজ গেটে আসে। আমার সঙ্গে তাদের দেখা হয়। রিফাত চলে যাওয়ার পর আমি ও মিন্নি কলেজে প্রবেশ করি। কিছুক্ষণ পর মিন্নি কলেজের দক্ষিণ পাশের দেয়ালে একটি মই (সিঁড়ি) দিয়ে নয়ন বন্ডের বাসায় যায়। রিফাত শরীফ মিন্নির ফোন বন্ধ পেয়ে আমাকে বারবার ফোন দিয়ে মিন্নির কথা জানতে চায়। আমি রিফাত ভাইকে বলি মিন্নি ক্লাসে। এরপর আমি নয়ন বন্ডকে ফোন দিয়ে বলি রিফাত ভাই মিন্নিকে খুঁজছে। তাকে পাঠিয়ে দাও। আমি নয়ন বন্ডের কথামতো মিন্নিকে আনতে তার বাসায় যাই এবং মিন্নিকে রিকশায় করে নিয়ে আসি।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৬ জুন রিফাতকে বরগুনার রাস্তায় প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সারা দেশে আলোচনার সৃষ্টি হয়। পর দিন রিফাত শরীফের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ ১২ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন, তাতে প্রধান সাক্ষী করা হয়েছিল মিন্নিকে।

পরে মিন্নির শ্বশুর তার ছেলেকে হত্যায় পুত্রবধূর জড়িত থাকার অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করলে ঘটনা নতুন দিকে মোড় নেয়। গত ১৬ জুলাই মিন্নিকে বরগুনার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে দিনভর জিজ্ঞাসাবাদের পর এ মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

সুত্র: পূর্বপশ্চিম

Check Also

ইন্দুরকানীতে প্রেমে ব্যর্থ হয়ে যুবকের আত্মহত্যা

ইন্দুরকানীতে প্রেমে ব্যর্থ হয়ে যুবকের আত্মহত্যা

পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে প্রেমে ব্যার্থ হয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে ইমন হাওলাদার (২০) নামের এক যুবক আত্মহত্যা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *